11011950_821910457844676_5528787084295379958_n

পুস্তক সমালোচনাঃ জীবন অনন্ত

ক্রিকেট নিয়ে পড়া আমার সেরা উপন্যাস কোনটি?

প্রায় আঠারো বছর আগে পড়া মতি নন্দীর “জীবন অনন্ত” – এক মিনিটও চিন্তা করতে হবেনা

এই উপন্যাসটি দুই ভারতীয় বাঙালি ক্রিকেটার জীবন আর অনন্ত-কে ঘিরে আবর্তিত হয়েছে| অনন্তের বাবা ছিলেন সততার সাথে আপোষ না করা একজন মানুষ, যিনি বড় পদের চাকুরি স্বেচ্ছায় ছেড়ে দিয়েছিলেন যাতে নোংরা টাকায় ছেলেকে মানুষ করতে না হয়| ইডেন গার্ডেনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফাস্ট বোলারদের দেখে তিনি সিদ্ধান্ত নেন, ছেলেকে ফাস্ট বোলার বানাবেন| এই স্বপ্ন সফল হবার আগেই তাঁর মৃত্যু ঘটে, আর তখন অনন্তকে নিয়ে একা লড়াই করেন মা তনিমা|

অনন্ত ধীরে ধীরে বড় হয়, অনূর্ধ্ব উনিশ দলে খেলার সুযোগ পায়| তার রূমমেট জীবন মারদাঙা ওপেনিং ব্যাটসম্যান, সবাই জানে,শিগগিরি টেস্ট দলে ডাক পাবে ও| হঠাৎ এক বাইক এ্যাক্সিডেন্টে হাত কাটা পড়ে জীবনের, চিরতরে শেষ হয়ে যায় তার টেস্ট খেলার আশা| বন্ধু অনন্তকে ঘিরেই সে তার অপ্রাপ্তি মেটানোর স্বপ্ন দেখে, হয়ে যায় তার ছায়াসঙ্গী|

পিতৃহীন অনন্তের কোন ব্যাক আপ নেই, বাঙালি বলে তাকে অবহেলা করা হয় বার বার| আমাদের কলকাতার দাদাবাবুরা যতই অস্বীকার করুক না কেন, মতি নন্দী তাঁর এই লেখায় ভারতীয় ক্রিকেট পলিটিক্সে বাঙালির অছ্যুৎ অবস্থানটা ঠিকই তুলে এনেছেন|

অস্ট্রেলিয়া ভারত সফরে এসে পেস বোলিং দিয়ে রীতিমত নাস্তানবুদ করে ভারতকে, তারপর বেরিয়ে পড়ে একের পর এক স্ক্যান্ডাল| পুরো দলটার আশি ভাগ সদস্যকে বহিষ্কার করা হয়, আর সেই সুবাদে ভারতের হয়ে টেস্ট খেলতে নামে অনন্ত|

শুরুর ঠিক আগে ড্রেসিং রূমে পড়ে গিয়ে কোমরে চোট পায় অনন্ত, কিন্তু সারাজীবনের স্বপ্ন পূরণের লোভে সেটা সে টিম ম্যানেজমেন্টকে জানায়না|
শুরুতে ব্যাটিং থাকায় ধরা পড়েনা এটা, কিন্তু ক্যাপ্টেন ঠিকই টের পেয়ে যায়|

প্রচন্ড ক্ষেপে অনন্তকে জানিয়ে দেয়া হয়, তার টেস্ট ক্যারিয়ার শুরুর আগেই শেষ হয়ে গেল এই মিথ্যাচারের জন্যে|

এ সময়ে অনন্তের সাথে দেখা করতে আসে জীবন|

পরের দিন দ্বাদশ ব্যক্তিকে মাঠে ঢুকতে বাধা দেয় অনন্ত, ক্যাপটেনকে আকুতি করে বলে, “স্যার, আমাকে এক ওভার বল দিন, আর চাইবনা, মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যাব”

জীবন কি বলেছিল অনন্তকে? ও কি পেরেছিল নিজের হারানো সম্মান ফিরিয়ে আনতে? কিভাবে?

উত্তর চাইলে পড়ুন বইটি| আমি পড়েছিলাম আনন্দমেলা পূজা সংখ্যায়,তবে আসল বইও পাওয়া যাবে নিশ্চিত, ইন্টারনেটেও পাবেন|

এই বইটি আমার কিশোর বয়েসে ক্রিকেটের প্রেমে পড়তে অন্যতম ভূমিকা রেখেছে| ক্রিকেট উপন্যাসের আড়ালে এটা আসলে একজন মানুষের জীবনযুদ্ধের গল্প| বইটির সেরা অংশটুকু না বলি,তবে আমার সবচেয়ে প্রিয় অংশ অনন্তকে দেয়া ওর বাবার উপদেশ, যা এই আঠার বছর পরেও আমার লাইন বাই লাইন মনে আছে:

“অপ্রত্যাশিত অনেক কিছুই তুমি পাবে মাঠে| ফেদারবেড পীচ, ব্যাটিং স্বর্গ ভেন্যু তো আছেই, তোমার বলে ওঠা একেবারে লোপ্পা ক্যাচও পড়বে মাটিতে| তবুও, এসব কিছু ছাপিয়েই তোমাকে জিততে হবে| এমনভাবে নিজেকে গড়তে হবে যাতে ভাঙা পা নিয়ে বল করেও তুমি উইকেট পাও”

প্রিয় পাঠক, জীবনের লড়াইয়ে সাফল্যের অগ্নিমন্ত্রও কি এটাই নয়?

হ্যাপি রীডিং!

প্রথম প্রকাশিতঃ ১০ই মে, ২০১৫

Comments

comments